1. nannunews7@gmail.com : admin :
  2. labonnohaq71@gmail.com : Labonno Haq : Labonno Haq
সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০২:১৯ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়ায় মামলা প্রত্যাহার না করায় বাদী পক্ষের ওপর হামলা !

  • প্রকাশিত সময় : বৃহস্পতিবার, ১২ নভেম্বর, ২০২০
  • ৬ বার

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:
কুষ্টিয়া জজ কোর্ট চত্বরে নারী নির্যাতন মামলা প্রত্যাহার না করায় বাদী পক্ষের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।
মামলার বাদী খাদিজা আক্তার লাবনী ও তার পিতা মোঃ হেলাল উদ্দিনসহ নাসিমা আক্তারের উপর এই হামলা হয়। এই ঘটনা ঘটে বৃহঃবার (১২ নভেম্বর) বেলা ১১ঃ৩০ ঘটিকার সময় ।

বাদী খাদিজা আক্তার লাবনী (২০) পিতা মোঃ হেলাল উদ্দিন সাং হোগলা, পোস্ট বালিয়াকান্দি থানা, কুমারখালী জেলা কুষ্টিয়া, বৃহঃবার (১২ নভেম্বর) তারা কুষ্টিয়া বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে উপস্থিতির নিয়মিত দিন ছিল । বাদীপক্ষ বিজ্ঞ আদালতে হাজিরা দিতে আসেন। তাদেরকে এ মামলা প্রত্যাহারের জন্য বিভিন্ন সময় হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছিল লাবনীর তালাকপ্রাপ্ত স্বামী মামলার বিবাদী আনিসুজ্জামান মুসা। তারা একইভাবে আদালত চত্বরে এ মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদী পক্ষের ওপর চাপ সৃষ্টি করে এবং হুমকি-ধামকি প্রদান করে। এতে বাদীপক্ষ রাজি না হলে তাদের হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।
এ সময় বাদীপক্ষ নিযুক্ত আইনজীবী এর চেম্বার হতে বাদি লাবনী সহ তার পরিবার বের হয়ে কোর্ট এ যাওয়ার উদ্দেশ্যে জামাল এর চার দোকানের সামনে পৌঁছালে আসামি মোঃ আনিসুজ্জামান মুসা, তার পিতা- মোতালেব মোল্লা ও তার গুন্ডা বাহিনী মিলে তাদের ওপর অতর্কিত আক্রমণ চালায়। মামলার বাদী খাদিজা আক্তার লাবনীর পিতা হেলাল উদ্দিন, খাদিজা আক্তার লাবনী নিজে এবং নাসিমা আক্তার কে গুরুতর আহত করে । ভিকটিম খাদিজা আক্তার লাবনী পিতা বর্তমানে গুরুতর আঘাত প্রাপ্ত হয়ে এখন কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রত অবস্থায় চিকিৎসা নিচ্ছেন । অন্যান্য আহতরা কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন।

ঘটনা সুত্রে জানা যায় ২৪/০৮/২০১৮ মোঃ আনিসুজ্জামান মুসা এর সাথে খাদিজা আক্তার লাবনীর বিবাহ হয় । আনিসুজ্জামান মুসা যৌতুকের ২ লক্ষ টাকার জন্য স্ত্রীর উপর বিভিন্ন সময় নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন । তারই প্রেক্ষিতে স্ত্রী কুষ্টিয়া ডিসি কোর্টে ২০১৮ সনের যৌতুক নিরোধ আইন এর ৩ ধারা মতে নারী নির্যাতন মামলা দায়ের করেন । এই মামলা কে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সময় হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে এমনকি খাদিজা আক্তার লাবনী দুইটা ফেক ফেসবুক আইডি আনিসুজ্জামান মুসা পরিচালনা করিতেছে এবং বিভিন্ন প্রকার অশ্লীল ছবি ভিডিও প্রদর্শন করছে।

ঘটনার সূত্রে আরো জানা যায় আসামি আনিসুজ্জামান একজন মাদকসেবক এবং বর্তমানে বি আর বি গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের সরকারি ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত আছেন । এছাড়াও বিভিন্ন মানুষের কাছে অপপ্রচার চালাচ্ছে । বাদীপক্ষ আসামি গনের এই নির্যাতনের ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে সর্বোচ্চ সহযোগিতা কামনা করছে এই বিষয়ে সঠিক তদন্ত করে সুষ্ঠু বিচারের জোর দাবি জানাচ্ছে।

দেশতথ্য//এল//

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Deshtathya
Theme Design By : Rubel Ahammed Nannu : 01711011640