1. nannunews7@gmail.com : admin :
  2. labonnohaq71@gmail.com : Labonno Haq : Labonno Haq
মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৮:০০ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়া জেলার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন ডিসি আসলাম হোসেন

  • প্রকাশিত সময় : মঙ্গলবার, ১০ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪ বার

বকুল চৌধুরীঃ

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোঃআসলাম হোসেন করোনা জয়ী প্রশাসক। তিনি এ জেলার সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে  যাচ্ছেন। করোরা জয়ী কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক দ্বায়িত্ব পাওয়ার পরপরই সর্বস্তরে লোকজনের সাথে মিশে সবার সহযোগীতায় কুষ্টিয়া জেলাকে একটি ডিজিটাল মডেল জেলা হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।তিনি কুষ্টিয়া জেলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে শতভাগ লকডাউন কার্যকর করেন । এমনকি করোনা প্রাদুর্ভাবের জন্য খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ে বিষয়টি অনুধাবনের পর তিনি নিজ উদ্যোগে লকডাউন থাকাকালীন সময়ে ১লাখ ২৭হাজার ৫শ ৫৫টি পরিবারের মধ্যে বেশি কর্মহীন গরিব মানুষের বাড়িতে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দেন ও ৯হাজার ৯শ ৩জন শিশুদের মধ্যে দুধ বিতরণ করা হয় এছাড়া জেলায় ৪শত করোনা আক্রান্ত রোগিদের মধ্যে একসঙ্গে ২০টি প্রকার খাদ্য পরিবেশন করেন। এছাড়াও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক এর নেতৃতে প্রশাসনের কর্মকর্তা – কর্মচারীরা  পেশাদ্বায়িত্বের সাথে শতভাগ আন্তরিকতার মাধ্যমে লকডাউন কর্মসূচি পরিচালনা ,বিদেশ ও অন্যান্য জেলা শহর থেকে আগত মানুষকে হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত, জনগনকে সচেতন করতে স্বান্থ্যবিধি সম্বলিত হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিবরণ, বেশকবার মাইকিং, ব্যানার প্রদর্শন , প্রধানমন্ত্রীর ৩১ দফা নিদের্শনা হ্যান্ডবিল আকারে প্রচার, অসচেতন কর্মজীবী জনসাধারণের মধ্যে ফ্রি মাস্ক ও পিপিই বিতরণ জেলা  প্রশাসনের সদস্যদের মনোবল বৃদ্ধি ও শরীরে এন্টিবডি তৈরি করতে পুষ্টিকর খাদ্য ঔষুধ প্রদান, সরকার ঘোষিত রেড জোন এলাকায় প্রবেশ ও বাহির পথে লকডাউন এবং উক্ত এলাকার ম্যাপ ও ব্যানার প্রদর্শন,করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যবরণকারী মানুষের দাফনের সরকারী সহায়তা ও নিরাপদ সৎকার কাজের সরঞ্জামাদি সরবরাহ সহ বহুমুখী কার্জক্রম করা হয়।এর প্রেক্ষিতে কুষ্টিয়া জেলার মহামারী করেনা ভাইরাস প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়েছ।মহামারী করোনা যুদ্ধ শুরু থেকেই মাঠ পর্যায়ে দিক নির্দেশনা জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারীরা অগ্রসোনানির ভুমিকা পালন করে যাচ্ছেন। লকডাউনের পর বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে গণপরিবহনে যাত্রী সেবা তদারকি অব্যাহত রেখেছেন। একই সাথে চালিয়েছেন সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করণ ক্যাম্পেইন । বলা যায় সামাজিক, সাংস্কৃতি সংগঠক ও রাজনীতিবীদের সাথে পাল্লা দিয়েই বিভিন্নমুর্খী কার্জক্রম চালিয়েছেন প্রশাসনের কর্মকর্তা – কর্মচারীরা।বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিতরণ করেছেন ক্রানসামগ্রী। হটলাইনে ফোন দিলেই মধ্যবিত্ত ও নি¤œ মধ্যবিত্ত অভুক্ত মানুষের ঘরে পৌছে দিয়েছেন খাদ্য সামগ্রী।স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দৌড়গোড়ায় পৌছে দিতে ভ্রাম্যমান ফ্রী মেডিকেল টিম চিকিৎসা দিয়েছেন।ডাক্তারদের সাথে নিয়ে তৈরি ভ্রাম্যমান টিম অ্যাম্বুলেন্সসহ গাড়িবহড় স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছেন এলাকা থেকে এলাকা।শুধু তাইনয় করোনার ছোবল থেকে প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরর রক্ষা করতে তার কার্যলায়ের জীবানুনাশক ট্যানেল বসানো হয়েছে।করোনা আক্রান্ত হয়ে একাধিক ব্যাক্তির লাশ দাফনে এলাকাবাসী ভয় পেলেও প্রশাসনের লোকেরা স্বমহিমায় এসব লাশের দাফন সম্পন্ন করেছেন।করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় মানুষকে সর্বাধিক সেবা প্রদান করে এখন। তাই স্ধারণ মানুষের মুখে মুখে এখন ভুয়সী প্রশংসা সর্বশেষে লকডাউন নিশ্চিতে জেলা প্রশাসনের কর্মকান্ড আলোচনার সম্মুখ ভাগে চলে আসেন জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।এছাড়াও করোনা কালে জেলা প্রশাসক এখানকার অসহায় ও কর্মহীন মানুষের মধ্যে বিনামূল্যে চাল, নগত টাকা, শিশু খাদ্য, ওএমএস এর খাদ্য-বান্ধব কর্মসূচির আওতায় মধ্য খাদ্য বিতরণ করেন। কুষ্টিয়া জেলার ৬টি উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে জনসাধারণের মাধ্যমে যাচাইবাছায় করে বয়স্ক, প্রতিবন্ধি ও বিধাব ভাতার ব্যবস্থা করেছেন। এছাড়া জেলায় ক্যানসার, কিডনি,লিভার সিরোসিস , স্টোকে প্যারালাইস ও জন্মগত রৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের অর্থ সহয়তায় চেক প্রদান করেছেন এবং প্রতি বুধবার তার কার্জলয়ে গণশোনানী মাদ্ধামে বিভিন্ন সমস্বার সমাধান করেন। এসব কর্মকান্ড ছাড়াও অসংখ্যা উন্নয়ন মূলক কাজ করেছেন।সুদক্ষ নিদের্শনায় জেলার সকল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা করোনা সংকট মোকাবেলাই ও লকডাউন নিশ্চিতে দিন-রাত কাজ করেছেন।পাশাপাশি অসহায়দের খাদ্য সহয়তা থেকে শুরু করে হ্যান্ডস্যানিটাইজার ও মাক্স বিনামূল্যে বিতরণ সহ সকল ধরনের কাজ করেছেন।এককথায় মানবসেবাই বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন একজন জনবান্ধব যোগ্য কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন ,তিনি ও করেনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তবুও তিনি করোনার কাছে হারমানেনি তার প্রশাসনিক সরকারি কার্জক্রম তৎপর ছিলেন । তিনি  বিসিএস ২০তম ব্যাজের ক্যাডার প্রশাসন কর্মকর্তা। তিনি বরগুনা জেলার সদর উপজেলার কোরক গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন।তিনি আওয়ামীলীগ ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কৃত সন্তান।কুষ্টিয়া জেলায় গত ৯ই আগষ্ট ২০১৮সালে জেলা প্রশাসক হিসাবে যোগদান করেন।

 

দেশতথ্য//এল//

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Deshtathya
Theme Design By : Rubel Ahammed Nannu : 01711011640