1. nannunews7@gmail.com : admin :
  2. labonnohaq71@gmail.com : Labonno Haq : Labonno Haq
মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:২৩ অপরাহ্ন

বহুমুখী সংকটে লালপুরের নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলস

  • প্রকাশিত সময় : বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ৬ বার

লালপুর (নাটোর) সংবাদদাতা:
আখমাড়াই মৌসুম শুরুর আগেই বহুমুখী সংকটে পড়েছে নাটোরের লালপুর উপজেলার নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলস। একদিকে অতিবৃষ্টির কারণে আখখেতে সৃষ্ট স্থায়ী জলাবদ্ধতায় আখের ফলন বিপর্যয় আর মিল জোনে অবৈধ পাওয়ার ক্রাশারে আখ মাড়াই এর কারণে চলতি ২০২০-২১ আখ মাড়াই মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। অপরদিকে চাষীদের বিগত মৌসুমের পাওনা টাকা পরিশোধে ব্যর্থতা আর সময়মত সার ও কীটনাশক দিতে না পারায় আখচাষে নিরুৎসাহিত হচ্ছে কৃষক। ফলে আখচাষের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়েও রয়েছে শঙ্কা। আখের ফলন কম ও পাওয়ার ক্রাশার মালিকদের কাছে আখ বিক্রি হলে চাষীদের মাঝে বিতরণকৃত ঋণের সাড়ে ৫ কোটি টাকা আদায়ও সম্ভব হবেনা বলে মন্তব্য করেছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া মিলের গুদামে পড়ে আছে ৩৯ কোটি টাকার চিনি। ফলে অর্থাভাবে বিগত মৌসুমে আখচাষীদের সরবরাহকৃত আখের মূল্য সময়মত পরিশোধ হয়নি। মিলে কর্মরতদের ৩ মাসের বেতনও রয়েছে বকেয়া। আবার সুগার মিলে আখ আবাদের রাসায়নিক সার ও কিটনাশকও নেই। মেটানো যাচ্ছেনা যন্ত্রপাতি, ক্যামিকেল ক্রয়সহ অন্যান্য খরচ।
নর্থ বেঙ্গল সুগার মিল সূত্রে জানাগেছে, ২ লাখ ৬৮ হাজার মে.টন আখ মাড়াই করে ২০ হাজার ১০০ মে.টন চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে আগামী ২০ নভেম্বর নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলের ২০২০-২১ আখ মাড়াই মৌসুমের উদ্বোধন করা হবে। এর আগেই ২শ ৮৩টি অবৈধ পাওয়ার ক্রাশারে (যন্ত্র চালিত আখ মাড়াই কল) মিল জোন এলাকায় আখ মাড়াই শুরু হয়েছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে কাঙ্খিত আখ পাবেনা সুগার মিল। এতে বিগত মৌসুমে আখচাষীদেরকে আখ আবাদের জন্য দেওয়া সাড়ে ৫ কোটি টাকার ঋণ আদায়ও হুমকির মুখে পড়বে। বিগত মৌসুমে উৎপাদিত ৬ হাজার ৫০০ মে.টন চিনি মিলের গুদামে মজুদ রয়েছে। যার বাজার মূল্য ৩৯ কোটি টাকা। চিনি বিক্রি না হওয়ায় অর্থাভাবে বিগত মৌসুমে আখচাষীদের সরবরাহকৃত আখের মূল্য সময়মত পরিশোধ হয়নি। মিলে কর্মরতদের তিন মাসের বেতনও রয়েছে বকেয়া। আবার সুগার মিলে আখ আবাদের রাসায়নিক সার ও কিটনাশকও নেই। মেটানো যাচ্ছেনা যন্ত্রপাতি, ক্যামিকেল ক্রয় ও অন্যান্য খরচ।
নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলের কৃষি বিভাগ সূত্রে জানাগেছে, চলতি আখ রোপন মৌসুমে ২৮ হাজার একর জমিতে আখচাষের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে অথচ সুগার মিলের কাছে বর্তমানে ইউরিয়া, টিএসপি, এমওপি সার ও কিটনাশক কোন কিছুই নেই যা আখচাষীদেরকে দেওয়া যাবে। ফলে আখচাষীরা সার কীটনাশকের অভাবে আখচাষ করতে পারছেন না। এতে তারা আখচাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন।
বাংলাদেশ আখচাষি ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও উত্তরবঙ্গ চিনিকল আখচাষি সমিতির সভাপতি আনছার আলী দুলাল জানান, সুগার মিলে আখ মাড়াই শুরুর মাত্র কয়েক দিন বাকি অথচ নানা বিড়ম্বনার পর সবেমাত্র আজ (সোমবার) বিগত মৌসুমে আখ সরবরাহের টাকা পেয়েছে কৃষক। আবার নতুন করে আখচাষের জন্য সার কিটনাশক দিতে পারছেনা মিল কর্তৃপক্ষ।
মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কৃষিবিদ হুমায়ন কবীর জানান, নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলের চিনি বিক্রি না হওয়ায় আখচাষিদের পাওনা যেমন সময়মত দেওয়া যায়নি। তেমনি মিলে কর্মরত কর্মকর্তা, শ্রমিক ও কর্মচারিদের বেতন ভাতাও পরিশোধ করা যাচ্ছেনা। তিনি সুগার মিলে অর্থসংকট ও রাসায়নিক সার, কিটনাশক না থাকার বিষয়টিও স্বীকার করেন।

দেশতথ্য//এল//

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Deshtathya
Theme Design By : Rubel Ahammed Nannu : 01711011640